বিমানকর্মীর পরিচয়ে সোনা চোরাচালান - সূর্য উদয়


বিমানকর্মীর পরিচয়ে সোনা চোরাচালান

0

জাফর ইকবাল ও জয়দেব দাস। তারা দৈনিক ভিত্তিতে পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে পাঁচ বছর ধরে কর্মরত। গত এক বছরে তারা ৫-৬ বার পায়ের জুতায় সোনা চোরাচালান করেছেন। সর্বশেষ সোমবার সন্ধ্যায় তাদের দেহ ও লকার তল্লাশি করে ৮০টি সোনার বার জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা। প্রায় সোয়া ৯ কেজি ওজনের এসব সোনার আনুমানিক বাজারমূল্য ৪ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। গতকাল হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আগমনী   হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের উপ-পরিচালক এইচএম শরিফুল হাসান। তিনি জানান, আটককৃতরা মূলত বিমানকর্মীর পরিচয়ে সোনা চোরাচালানের সঙ্গে সম্পৃক্ত। কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে সোনার বড় একটি চালান আসছে— এমন তথ্য গোয়েন্দাদের কাছে আগেই ছিল। সোমবার বিকালে ফ্লাইট নামার পরই সতর্কাবস্থায় থাকে শুল্ক গোয়েন্দারা। ওই ফ্লাইট পরিষ্কার শেষে বেরিয়ে যাওয়ার পথে জাফর ইকবালকে আটক করা হয়। এ সময় তার জুতা তল্লাশি করে ৪০পিস সোনার বার পাওয়া যায়। পরবর্তীতে তারই দেওয়া তথ্যে হেনগার গেট থেকে জয়দেবকে আটক করা হয় এবং তার ব্যবহৃত লকার থেকে আরও ৪০পিস সোনার বার জব্দ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানিয়েছেন, সোনার এই চালানটি জামাল নামে একজনের কাছে তাদের পৌঁছে দেওয়ার কথা ছিল। শুল্ক গোয়েন্দা সূত্র জানায়, গত এক মাসে সিভিল এভিয়েশন ও বিমান বাংলাদেশে কর্মরত অন্তত ৭ জন সোনা চোরাচালানে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক হয়েছেন। জানা যায়, জাফর ইকবাল ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু গ্রামের আবদুল মান্নান মণ্ডলের ছেলে। আর জয়দেব দাস পুরান ঢাকার গেণ্ডারিয়ার সুইপার কলোনির জীবন দাসের ছেলে।

Share.

Leave A Reply

Translate »